Mrinal Sen:‘পদাতিক, তুমি এখানেই থেমো না…’, আকুতি দুর্নিবার, সুরঙ্গনা, অনুষ্কাকাদের গলায়

কেটে গেছে পাঁচ বছর। ২০১৮ সালেই ‘পদাতিক’-স্রষ্টা মৃণাল সেন পাড়ি দিয়েছেন অমৃতলোকে। গত ৩০শে ডিসেম্বর ছিল তাঁর পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী। আর সেদিনই, তাঁকে শ্রদ্ধা জানানোর উদ্দেশ্যে, ‘Sony Music’-এর তরফ থেকে একটি মিউজিক ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে।

মিউজিক ভিডিওটিতে সপ্তক সানাই দাসের কম্পোজিশনে গান গেয়েছেন দুর্নিবার সাহা, সুরঙ্গনা বন্দ্যোপাধ্যায়, অনুষ্কা দাস এবং সানাই, নিজে। গানটির কথা লিখেছেন ধ্রুবজ্যোতি চক্রবর্তী। সপ্তকের সুরের কথা বললেই বাঙালির কানে এক্স=প্রেম সিনেমার কথা মনে পড়বেই।এই সিনেমার সব গান শ্রোতাদের কানে আজও বেজে চলেছে।বিশেষ করে অনুষ্কা দাসের কণ্ঠে রাইকিশোরী অভাবনীয় ভালোবাসা পেয়েছে।ফিরে আসা যাক নতুন এই গান নিয়ে,মৃণাল সেনের ছবির কিছু কিছু টুকরো দৃশ্য এবং তাঁর ছবি, ভিডিও ও শ্যুটংয়ের দৃশ্যের ঝলক দিয়েই মূলত সাজানো হয়েছে ভিডিওটি। গানের কথাও লেখা হয়েছে তাঁর বিভিন্ন ছবির নাম মাথায় রেখে। আর দুয়ের মেলবন্ধনে প্রাণ পেয়েছে এই মিউজিক ভিডিও।

পঁচানব্বই বছরের জীবনে ‘কলকাতা ট্রিলজি’ (ইন্টারভিউ, কলকাতা ৭১, পদাতিক), ‘ভুবন সোম’, ‘নীল আকাশের নীচে’-সহ বহুসংখ্যক ভিন্নধারার ছবি তিনি বানিয়েছেন। আর তার সবক’টিই নিতান্ত স্বল্প ব্যয়ে বানানো। কোনোরকম আড়ম্বর বরাবরই ছিল তাঁর না-পসন্দ। এমনকি ছবিতে সঙ্গীতের ব্যবহারও ছিল কম। দূরদর্শনের জন্য ১২টা শর্টফিল্ম বানিয়েছিলেন মৃণাল সেন। বিয়ে করেছিলেন অভিনেত্রী গীতা সোমকে। পঁয়ষট্টি বছরের বিবাহিতজীবনের শেষে, ২০১৭ সালের ১৭ই জানুয়ারি প্রয়াত হয়েছিলেন বছরছিয়াশির গীতা। তারপর কাটেনি দু’বছরও, ২০১৮-র শেষেই প্রয়াত হন মৃণাল সেন।

Author

  • Debasmita Biswas

    বেথুন কলেজ থেকে উদ্ভিদবিদ্যায় স্নাতক। পড়ার নেশা ছোট থেকে, প্রাথমিকভাবে লেখালেখির শুরু শখেই। তারপর সংবাদপত্র, পত্র-পত্রিকায় সমালোচনা পড়ার অভ্যাস আর বিভিন্ন নাটক, সিনেমা দেখার পর বিশ্লেষণ করার শখ থেকেই ইচ্ছে সমালোচক হওয়ার। বিনোদনজগতের বিভিন্ন খবর করার পাশাপাশি নাটক এবং সিনেমা দেখে তার গঠনমূলক সমালোচনাও করেন তিনি।

Scroll to Top