NEVERMIND: পার্কস্ট্রীটের বারে কার গান শুনলেন ঋতুপর্ণা?

চৈতী ঘোষালকে বাঙালী বরাবর চেনে অভিনেত্রী হিসেবে। কিন্তু অভিনয়জগতে এতবছর কাটানোর পর, নতুনবছরে নতুনরূপে দর্শকদের কাছে ধরা দেবেন চৈতী। নতুন বছরে পরিচালনার কাজে হাত দিয়েছেন চৈতী। আসছে তাঁর পরিচালনায় প্রথম ছবি ‘নেভারমাইন্ড’। সম্প্রতি প্রকাশিত হল ছবির চরিত্র ও অভিনেতাদের নাম এবং ‘লুক’।

বিদেশে স্বামী-সন্তান নিয়ে থাকা তৃণা, হঠাৎ তাঁর অতীতের এক ঘটনার সন্ধানে পৌঁছে যান পার্কস্ট্রীটের নেভারমাইন্ড বারে। সেখানেই তাঁর দেখা হয় এক তরুণ গায়ক জুডের সঙ্গে, যার সঙ্গে এক অদ্ভুত যোগাযোগ তৈরী হয় তাঁর। ছবির গল্পে কেবল একটামাত্র দিন ও রাতের কথা বলা হবে। কিন্তু তার মধ্যেই দেখা যাবে কলকাতার বহু সমান্তরাল চরিত্রকে। পার্কস্ট্রীট ধরা দেবে অন্যরূপে।

ছবিতে মুখ্য চরিত্রে দেখা যাবে ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত (তৃণা) এবং চৈতী-পুত্র অমর্ত্য রায়কে (জুড)। এছাড়াও ছবিতে থাকছেন অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ (সান্যাল), শুভাশিস মুখোপাধ্যায় (রবি), শুভ্রজিৎ দত্ত (অভি), অনুষা বিশ্বনাথন (নয়না), রাজা চক্রবর্তী (বাদশা), সুজয়প্রসাদ চ্যাটার্জী (রায়দা)।

ছবির কাহিনী লিখেছেন সম্রাট ঘোষাল, চিত্রনাট্য লিখেছেন সম্রাট ও মিতালী ঘোষাল রুদ্র। MS Production প্রযোজিত এই ‘ফিচার ফিল্ম’টি নিবেদন করেছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। অভিনয় করতে করতে হঠাৎ পরিচালনার কাজ করছেন কেন চৈতী? এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, ‘গল্পটা ভীষণই ভাল লেগে গিয়েছিল। এই গল্পটাই আমি বলতে চাইছিলাম। আমি বাড়ীতেও একটা কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলাম। মনে হল, এই সময়টাই আমাকে এই গল্পটা পরিচালনা করার দিকে এগিয়ে দিচ্ছে।’

প্রায় ২৫ বছরের উপর সম্পর্ক চৈতী-ঋতুপর্ণার। চৈতীকে বড়দিদির মতই ভালবাসেন তিনি। তাঁর প্রথম ছবিতে কাজ করে বেশ খুশী অভিনেত্রী। জানিয়েছেন, সবসময়েই ছকভাঙা কাজ করতে চান তিনি। এই কাজটা একেবারেই সেরকম। অন্যান্য ছবিতে অভিনয় করলেও, মায়ের পরিচালনায় এটাই প্রথম কাজ অমর্ত্যর। ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তর মত অভিনেত্রীর সঙ্গে কাজ করতে পেরে খুশী তিনিও। ছবির সঙ্গীত পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন রূপম ইসলাম। সিনেমাটোগ্রাফির দায়িত্ব থাকছে গোপী ভগতের হাতে।

ছবির একটা বড় অংশ জুড়ে রয়েছে শহর কলকাতার পানশালা। সেখানকার মানুষের আচার-আচরণ, তৃণার যাত্রা, জুডের চরিত্র দর্শকের মন জিততে পারে কিনা, এখন সেটাই দেখার।

Author

  • Debasmita Biswas

    বেথুন কলেজ থেকে উদ্ভিদবিদ্যায় স্নাতক। পড়ার নেশা ছোট থেকে, প্রাথমিকভাবে লেখালেখির শুরু শখেই। তারপর সংবাদপত্র, পত্র-পত্রিকায় সমালোচনা পড়ার অভ্যাস আর বিভিন্ন নাটক, সিনেমা দেখার পর বিশ্লেষণ করার শখ থেকেই ইচ্ছে সমালোচক হওয়ার। বিনোদনজগতের বিভিন্ন খবর করার পাশাপাশি নাটক এবং সিনেমা দেখে তার গঠনমূলক সমালোচনাও করেন তিনি।

Scroll to Top