KLIKK: শক্তিরূপিণী অবতারে ওয়েব-ডেবিউ বাসবদত্তার, সঙ্গে রেজওয়ান

নতুন বছরে এক নতুন শুরু অভিনেতা রেজওয়ান এবং অভিনেত্রী বাসবদত্তার। সুরজিৎ (সাহেব) মুখার্জীর পরিচালনায় ‘শক্তিরূপেণ’ ওয়েব সিরিজের হাত ধরেই ওটিটি প্ল্যাটফর্মে ডেবিউ করতে চলেছেন দুজনে।

অম্লান মজুমদারের লেখা ‘#ভাগাড়’ ওয়েব সিরিজটি ভীষণই সফল হয়েছিল। ফের একটি সত্য ঘটনার উপর ভিত্তি করে নিজের কাহিনী লিখেছেন তিনি। আসতে চলেছে এক রুদ্ধশ্বাস ওয়েব সিরিজ ‘শক্তিরূপেণ’। সিরিজটির চিত্রনাট্য এবং সংলাপ লেখার দায়িত্বও অম্লানের। সিরিজের সৃজনশীল পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন ‘#ভাগাড়’-এর পরিচালক রাজদীপ ঘোষ। ‘Skypan’s Communication’ প্রযোজিত এই সিরিজে ফুটে উঠবে এক প্রত্যন্ত গ্রামে হয়ে চলা নারকীয় ঘটনার প্রতিচ্ছবি।

১৯৯৯ থেকে ২০০১ – এই তিনবছরে বরুণ বিশ্বাসের গ্রাম সুটিয়া হয়ে উঠেছিল নরক। কমপক্ষে দু’শোটি ধর্ষণের রেকর্ড আছে এই গ্রামে। শুধু তাই নয়, চল্লিশদিনে ঊনআশিটা ধর্ষণের ভয়ংকর স্মৃতির ঘা এখনো দগদগে। এই কাহিনীর কেন্দ্রীয় দুই চরিত্র রিষান (রেজওয়ান) এবং তারই বুটিকের ডিজাইনার দময়ন্তী(বাসবদত্তা)। এক বৃষ্টিভেজা রাত্রে, ফুলিয়া থেকে গাড়ীতে করে ফেরার সময়ে, একজন বিপন্ন মেয়ে সাহায্য চায় তাদের। কিন্তু তিলক দাস ও তার দুই সঙ্গী সৈদুল ও কালু এসে পড়ায়, নিজের ও দময়ন্তীর প্রাণ বাঁচাতে গাড়ী ছুটিয়ে বেরিয়ে যায় রিষান। পরদিন তারা জানতে পারে, মেয়েটিকে গণধর্ষণ করে মেরে ফেলা হয়েছে। রিষান চেপে যেতে বললেও, তা মন থেকে মানতে পারে না দময়ন্তী। শুরু হয় তার লড়াই। অন্যদিকে ভিক্টিম নয়না মণ্ডলের হয়ে লড়াই চালিয়ে যেতে থাকেন কালনা কোর্টের উকিল হালদারবাবু, জীবনে একবার এজলাসটা কাঁপানোই যাঁর স্বপ্ন।

এরপরই গল্প বাঁক নেয় এক নতুন পথে। একে একে খুন হয় সৈদুল, কালু ও তিলক দাস। কে এই খুনি? এর সঙ্গে কি জড়িয়ে রয়েছে সুটিয়ার কোনো অতীত? সত্যি কি দময়ন্তী মানসিক রোগী নাকি তার পিছনে লুকিয়ে আছে অন্য কোন মানুষ? সব প্রশ্নের উত্তর দেবে ছয়পর্বের এই সিরিজ ‘শক্তিরূপেণ’।

বাসবদত্তা চ্যাটার্জী ও রেজওয়ান ছাড়াও সিরিজে রয়েছেন অম্লান মজুমদার, বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য, স্বর্ণকমল, অঙ্কুর রায়, রানা মুখার্জী, সৌমেন দত্ত প্রমুখ। পরিচালক সুরজিৎ (সাহেব) মুখার্জী সিরিজটি নিয়ে কথা বলতে গিয়ে বলেন, ‘গল্পটির প্রেক্ষাপট অম্লান যখন আমাকে শোনায় তখনি আমার বুকের ভেতরটা হা হা করে উঠে। রাগ এবং দুঃখপ্রকাশের আমাদের মত পরিচালকদের একটাই মাধ্যম। আজ সেই মাধ্যমের সাহায্যেই আপনাদের সামনে আনতে চলেছি সত্যঘটনা অবলম্বনে ‘শক্তিরূপেণ’।’

সিরিজের কাহিনীকার অম্লান অভিনয়ও করেছেন এই সিরিজে। Klikk এর সঙ্গে তাঁর পঞ্চম প্রজেক্ট এটি। তিনি জানান, ‘মনে হল, এই শতাব্দীতে দাঁড়িয়ে যেখানে আমরা আধুনিকতার ধ্বজা ওড়াই, সেখানে একটা প্রতিবাদ দরকার। NCRB Annual Report of 2021-এর তথ্য অনুযায়ী, আজও ভারতবর্ষে প্রতি ১৬ মিনিট অন্তর একজন নারী ধর্ষিতা হন। এই কাহিনী সেই পাশবিকতার বিরুদ্ধে আমার নীরব প্রতিবাদ।’

প্রতিক্রিয়া পাওয়া গিয়েছে বাসবদত্তা এবং রেজওয়ানের থেকেও। অভিনেত্রী বাসবদত্তা বলেন, ‘এর আগে বহু প্রতিবাদী নারী চরিত্রে অভিনয় করেছি, কিন্তু দময়ন্তী চ্যাটার্জি আমাকে নতুন ভাবে ভাবতে শিখিয়েছে। এটি আমার করা অন্যতম একটি পছন্দের চরিত্র হয়ে থেকে যাবে। তসলিমা নাসরিনের লেখা থেকে ধার করে একটা কথাই বলব, ‘শত সহস্র বছর তুমি ভালো ছিলে মেয়ে, এবার একটু মন্দ হও।”

অভিনেতা রেজওয়ানের মতে, ‘আমি সবসময় চরিত্র চয়ন করি এটা ভেবে যে, কোনো ভালো গল্প মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া প্রয়োজন, বা দর্শক আমায় কিভাবে কোন চরিত্রে দেখতে চাইছেন তার ওপর ভিত্তি করে। সেখানে একজন অভিনেতা হিসেবে আমারও কোথাও দায়িত্ব থাকে এই ধরনের বার্তা সমাজের মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার।’

স্পষ্ট তারিখ জানা না গেলেও, জানা গিয়েছে, এই ফেব্রুয়ারি মাসেই স্ট্রিমিং শুরু হবে ‘শক্তিরূপেণ’-র। আদৌ কি জিততে পারবে দময়ন্তী? নাকি ‘অন্ধা কানুন’-এর খেলায় সেও হারিয়ে যাবে এক অজানা অন্ধকারে? সেটা জানা আর মাত্র কিছুদিনের অপেক্ষা।

Author

  • Debasmita Biswas

    বেথুন কলেজ থেকে উদ্ভিদবিদ্যায় স্নাতক। পড়ার নেশা ছোট থেকে, প্রাথমিকভাবে লেখালেখির শুরু শখেই। তারপর সংবাদপত্র, পত্র-পত্রিকায় সমালোচনা পড়ার অভ্যাস আর বিভিন্ন নাটক, সিনেমা দেখার পর বিশ্লেষণ করার শখ থেকেই ইচ্ছে সমালোচক হওয়ার। বিনোদনজগতের বিভিন্ন খবর করার পাশাপাশি নাটক এবং সিনেমা দেখে তার গঠনমূলক সমালোচনাও করেন তিনি।

Scroll to Top